মাদক পরীক্ষার মৌলিক বিষয়ঃ

মাদক হলো একধরণের রাসায়নিক দ্রব্য যা গ্রহণে মানুষের শারীরিক ও মানসিক অবস্থার উপর প্রভাব পড়ে এবং যা আসক্তি সৃষ্টি করে। মাদক পরীক্ষাগুলির মাধ্যমে সাধারণত বোঝা যায় না যে বিষয়টি নিয়ন্ত্রিত হবে কি না, কেবলমাত্র বোঝা যায় যে, ব্যক্তি (রুগী) ওই সময় কোন নেশা ব্যবহার করত কিনা। ড্রাগ পরীক্ষা বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন পদ্ধতিতে করা হয়। মাদক পরীক্ষা হলো কোন ব্যক্তি মাদক ব্যবহার করে কিনা তা নির্ধারণ করার একটি উপায়, যা বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থের উপস্থিতিতে নির্ণয় করা হয়।
National Institute of Drug Abuse (এনআইডিএ) অনুমান করে যে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও আসক্তিপূর্ণ আচরণের কারণে বছরে প্রায় ৫২৪ বিলিয়ন ডলার কর্মক্ষেত্রের অদক্ষতা, স্বাস্থ্যসেবা খরচ, অপরাধ এবং আইনি সমস্যাগুলির মাধ্যমে নষ্ট হচ্ছে। মাদক মুক্ত কর্মক্ষেত্র নিশ্চিত করতে এবং তাদের বিনিয়োগ রক্ষা করার জন্য, যে কোন প্রতিষ্ঠানের নিয়োগকর্তারা তাদের কর্মচারীদের মাদক পরীক্ষা করতে পারে।
এনআইডিএ অনুযায়ী, আনুমানিক 67.9 শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক অবৈধ মাদক সেবনকারী আংশিক সময় চাকুরী করে এবং তাদের মধ্যে অনেকে পূর্ণ-সময় চাকুরীতে নিযুক্ত আছে। মাদক পরীক্ষা কর্মক্ষেত্রে মাদকের অপব্যবহার কমাতে সহায়ক হয়, যা তাদের কর্মীদের কর্মক্ষেত্রে নানা প্রকিকূলতা থেকে রক্ষা করে। অনেক স্কুল এবং পেশাদার ক্রীড়া সংস্থা মাদক পরীক্ষা করে তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি বা অবৈধ মাদক সেবনকারীদের চিহ্নত করার জন্য। যেসব স্কুলগুলো নিয়মিতভাবে মাদক পরীক্ষা করা হয়, শুধুমাত্র তাদের ক্রীড়া সংস্থা বা ছাত্র সংস্থাগুলোকে প্রতিযোগিতামূলক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য আইনত অনুমতি দেওয়া হয়।

পুনর্বাসন ও নিরাময়ের সময় মাদক পরীক্ষাঃ

মাদক পরীক্ষার দ্বারা সেবন করা বিভিন্ন ধরনের মাদক এবং সেবনের পরিমাণ নির্ণয় করা হয়। মাদক পরীক্ষাগুলি সাধারণত কোনও নতুন রোগী ভর্তির ক্ষেত্রে তার স্তর নির্ধারণের জন্য পরিচালিত হয়।
একটি কার্যক্রমে প্রবেশ করার সময় মাদকাসক্ত ব্যক্তি সম্পূর্ণরূপে সচেতন থাকতে পারে না, অথবা তারা মনে রাখতে পারে না তারা কতগুলো উপাদান ব্যবহার করেছেন। চিকিৎসার সময় ডিটক্স বা ঔষধ দেয়ার আগে সিস্টেমে কী ওষুধ থাকতে পারে তা জানতে একটি ভাল ধারণা থাকা দরকার। মাদকের (অ্যালকোহল সহ) অপ্রত্যাশিত এবং বিপজ্জনক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার ফলে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারে। সুতরাং চিকিৎসা শুরু হওয়ার আগে পদ্ধতিটি কী ধরনের এবং কতটুকু হতে পারে তার একটি পরিষ্কার ধারণা থাকা গুরুত্বপূর্ণ।
চিকিৎসার সময় ব্যক্তিদের নিরাপদ, সৎ ও মাদক মুক্ত রাখার জন্য পুনর্বাসন করার সময় নিয়মিত বা অন্তর্বর্তী সময়ের মাঝেমাঝে ড্রাগ টেস্টিং পরিচালনা করা যেতে পারে। অনিয়মিতভাবে মাদক পরীক্ষা করে রুগীর ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন। মাদক পরীক্ষা বিপজ্জনকভাবে পুনঃপতিত হওয়ার পর্বগুলি প্রতিরোধ করতে পারে। হাসপাতালের ভেতরের ও বাইরের উভয় রুগীদের একইভাবে চিকিৎসা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইতিবাচক শক্তিবৃদ্ধি জন্য মাদক পরীক্ষার করতে পারে।
মাদক পরীক্ষা কোন চিকিৎসার পদ্ধতি নয়, বরং একটি সরঞ্জাম যা পুনর্বাসনের আগে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং পুনরুদ্ধারের সময় এটি একটি অসমাপ্ত জীবনধারাকে সহজ এবং উৎসাহিত করতে পারে। একটি ইতিবাচক মাদক পরীক্ষার পরে ডিটক্স হতে পারে মাদক বা অ্যালকোহল চিকিৎসা প্রোগ্রামের প্রাথমিক পদক্ষেপ। একটি স্থিতিশীল শারীরিক ভারসাম্য পৌঁছানোর পরে, আচরণগত চিকিতৎসা, ব্যক্তিগত বা দলগত কাউন্সেলিং সেশন এবং সহকর্মীদের সহায়তার জন্য দলগুলোকে সহজতর চিকিৎসা পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।
মাদক পরীক্ষা চিকিৎসার শুরুতে ঘন ঘন এবং নিরাময়ের সময় কম ঘন ঘন হতে পারে। মাদক পরীক্ষার পাশাপাশি ক্ষতিকর বিশেষ মাদকগুলো অন্তর্ভুক্ত করার জন্য নির্দিষ্ট করা যেতে পারে।